কম্পিউটার অপারেটর ক্যারিয়ার – চাকরি এবং অন্যান্য | Computer Operator

কম্পিউটার অপারেটর

Computer Operator / কম্পিউটার অপারেটর – হলেন সেই ব্যক্তি যিনি মূলত কোন প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য সংগ্রহ ও সংরক্ষণের কাজ করেন। এসব কাজ তিনি করে থাকেন বিভিন্ন সফটওয়্যার এবং ইন্টারনেটের সাহায্য নিয়ে। একজন Computer Operator-কে বাংলা ও ইংরেজিতে দ্রুতগতিতে টাইপ করা জানতে হয়। এছাড়া এম এস ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট ও ইন্টারনেটের ব্যবহারে সম্পর্কে সম্যক ধারনা থাকতে হয়।

এছাড়া প্রতিষ্ঠানের চাহিদা অনুযায়ী তাকে অফিস সহকারির কাজ করতে হতে পারে, অন্যের সাথে আলাপচারিতা এবং যোগাযোগ রক্ষা করতে হবে, স্বতন্ত্রভাবে কাজ করতে সক্ষম হতে হবে, শক্তিশালী বিশ্লেষণযোগ্য দক্ষতা থাকতে হবে এবং কম্পিউটার সম্পর্কিত সমস্যা সনাক্ত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার সামর্থ থাকতে হবে।

Computer Operator / কম্পিউটার অপারেটর

কম্পিউটার অপারেটর পদ সম্পর্কে কিছু তথ্য

  • পদের নাম – কম্পিউটার অপারেটর, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর।
  • জবের ধরন – ফুল টাইম, পার্ট টাইম।
  • এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য বয়স – প্রতিষ্ঠানভেদে ভিন্ন হয়ে থাকে।
  • এন্ট্রি লেভেলে অভিজ্ঞতা – প্রতিষ্ঠানভেদে ভিন্ন হয়ে থাকে।
  • এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য মাসিক বেতন – সরকারি প্রতিষ্ঠানে বেতনের স্কেল অনুযায়ী হয়ে থাকে, আর বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে আলোচনা সাপেক্ষে নির্ধারিত হয় যেটা ১০-১৫ হাজার হতে পারে।
  • বিশেষ দক্ষতা – দ্রুত এবং নির্ভুল টাইপিং, বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া এবং কোলাবরেশন টুলের উপর দক্ষতা, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ সম্পাদন করা।

কম্পিউটার অপারেটরের কাজ ও দায়িত্ব

  • বিভিন্ন ধরনের ডাটা এন্ট্রি করা।
  • পুরানো তথ্য বা ডাটা আপডেট করা।
  • বিভিন্ন ডাটা স্প্রেডশিটে তোলা।
  • স্প্রেডশিট এবং অন্যান্য ধরণের সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে ডাটা সংগ্রহ করা এবং সেগুলো ব্যবহার করে রিপোর্ট তৈরি করা।
  • প্রয়োজন অনুযায়ী প্রোগ্রাম আউটপুট সংগ্রহ করা, বাছাই করা ও পৃথক করা এবং প্রাপ্ত ডাটা নির্দিষ্ট ব্যবহারকারীদের কাছে পাঠানো।
  • বিভিন্ন ধরনের ডকুমেন্ট তৈরি করা ও সংরক্ষণ করা।
  • ইকুইপমেন্টের পারফরমেন্স সফল এবং নির্ভুল রাখার জন্য সিস্টেম মনিটর করা।
  • যন্ত্রাংশের যেকোন ত্রুটি সম্পর্কে সুপারভাইজার বা কম্পিউটার মেনটেইনেন্স টেকনিশিয়ানদের অবহিত করা।
  • দক্ষ ব্যবহারের জন্য কম্পিউটার টার্মিনাল এবং নেটওয়ার্ক সহ কম্পিউটার হার্ডওয়্যার সিস্টেমগুলির ব্যবহারের সমন্বয় ও শিডিউল করা।
  • কম্পিউটারের অপারেটিং সময় ঘটে যাওয়া সমস্যা এবং সমাধানের জন্য নেওয়া পদক্ষেপের মতো তথ্যগুলোর রেকর্ড রাখা।
  • মেমোরি ইউনিট থেকে ম্যাগনেটিক টেপে এনকোডেড ডাটা স্থানান্তর করতে এবং টেপগুলিকে লেবেলিং, তালিকাভুক্তি এবং রক্ষণাবেক্ষণ করা।
  • পেরিফেরাল ইকুইপমেন্ট অপারেটর এবং কম্পিউটার অপারেটর প্রশিক্ষণার্থীদের প্রশিক্ষণ এবং তদারকি দেয়া।
  • প্রোগ্রামার এবং সিস্টেম এনালিস্টদের নতুন প্রোগ্রাম চালু করতে এবং ডিবাগ করতে সহায়তা করা।

নোট:

পেরিফেরাল ইকুইপমেন্ট: পেরিফেরাল ডিভাইস হল কম্পিউটারের মাউস বা কীবোর্ডের মতো কোনও এক্সটার্নাল সহায়ক ডিভাইস যা কোনোভাবে কম্পিউটারের সাথে সংযোগ স্থাপন করার মাধ্যমে কাজ করে। পেরিফেরাল ডিভাইসের অন্যান্য উদাহরণগুলি হলো এক্সপেনশন কার্ড, গ্রাফিক্স কার্ড, ইমেজ স্ক্যানার, টেপ ড্রাইভ, মাইক্রোফোন, লাউড স্পিকার, ওয়েব ক্যাম এবং ডিজিটাল ক্যামেরা প্রভৃতি।

ডিবাগ: বিভিন্ন বাগ বা এরর সমাধানের পদ্ধতি।

একজন কম্পিউটার অপারেটরের যেসব দক্ষতা থাকতে হয়

  • ডাটা প্রসেসিং
  • যোগাযোগ দক্ষতা
  • রিপোর্টিং দক্ষতা
  • গোপনীয়তা
  • ডকুমেন্টেশনে দক্ষতা
  • সরঞ্জামের রক্ষণাবেক্ষণ
  • সমস্যা সমাধান
  • কম্পিউটার নেটওয়ার্ক (LAN, WAN এবং কম্পিউটার নেটওয়ার্কিং) সম্পর্কে ধারনা।
  • ডকুমেন্টেশন তৈরি এবং আপডেট করা।

কম্পিউটার অপারেটর-এর যে সমস্ত প্রোগ্রামের উপর দক্ষতা থাকাটা জরুরি

  • বেসিক অপারেটিং সিস্টেম।
  • অফিস এপ্লিকেশন (মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, পাওয়ার পয়েন্ট, এক্সেল)।
  • ইন্টারনেট ব্রাউজিং এবং বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন এপ্লিকেশন।
  • ইমেইল আদান – প্রদান।
  • প্রয়োজনীয় বিভিন্ন সফটওয়্যার ইন্সটল এবং অপারেট করা।

চাকরির ক্ষেত্র

  • সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর, হিসাব সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর, সাঁট মুদ্রাক্ষর কাম কম্পিউটার অপারেটর প্রভৃতি পদে।
  • বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর, ডাটা এন্ট্রি অপারেটর হিসেবে।
  • ব্যাংক – বীমাসহ বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানে।
  • বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে
  • বিভিন্ন গণমাধ্যমগুলোতে
  • আত্ম – কর্মসংস্থানের মাধ্যমে

যোগ্যতা

  • নুন্যতম এইচএসসি উত্তীর্ন হওয়া লাগে।
  • কম্পিউটারে কাজের দক্ষতার ক্ষেত্রে কোন ধরনের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার প্রয়োজন হয় না, তবে থাকলে ভালো।
  • কম্পিউটার এবং ইন্টারনেট সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হয়।

কম্পিউটারের উপর কোথায় প্রশিক্ষণ নেবেন

  • সরকারি এবং বেসরকারি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটারের উপর শর্ট কোর্সের প্রোগ্রাম পরিচালিত হয়।
  • এছাড়া বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকেও কম্পিউটারের উপর প্রশিক্ষণ নেয়া যায়।
  • আজকাল ঘরে বসে ইউটিউবে ভিডিও দেখেও অনেকেই এই কাজ গুলো শিখে নিচ্ছেন। যদিও এক্ষেত্রে কোন খরচ করা লাগে না, কিন্তু সার্টিফিকেটের দরকার থাকলে অনুমোদিত কোন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রশিক্ষণ নেয়াই উত্তম।

ক্যারিয়ার

এই পেশায় এন্ট্রি পর্যায়ে কাজের সুযোগ রয়েছে অনেক। ১/২ বছরের অভিজ্ঞতার ভালো চাহিদা রয়েছে। সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ছাড়াও কম্পিউটার অপারেটররা ব্যাংক, বীমা সংস্থা এবং মেনুফ্যাকচারার সহ অনেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন। এছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং কম্পিউটার সেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলিতেও কাজ করেন।

তবে শুধু এই যোগ্যতা নিয়ে কোন প্রতিষ্ঠানে ভালো কোন পদে পৌঁছানো সম্ভব না, বড়জোর নতুন অপারেটরদের লিডার হিসেবে দায়িত্ব পেতে পারে। এছাড়া অনলাইন মার্কেটপ্লেসে ডাটা এন্ট্রির মত কাজের মাধ্যমেও আয় করা সম্ভব।

ট্যাগ সমূহ

কম্পিউটার অপারেটর, computer operator, computer operator jobs, computer operator job description, computer operator salary, computer operator vacancy, computer operator jobs near me, computer operator jobs in govt sector, computer operator responsibilities, computer operator work, computer operator meaning, কম্পিউটার অপারেটরের দায়িত্ব, কম্পিউটার অপারেটর জব, কম্পিউটার অপারেটর নিয়োগ, কম্পিউটার অপারেটরের বেতন