পলিটেকনিক ট্রান্সফার হতে চাইলে যেসকল বিষয় জেনে রাখতে হবে

পলিটেকনিক ট্রান্সফার

পলিটেকনিক ট্রান্সফার – অনেকের স্বপ্ন থাকে ভাল একটি পলিটেকনিকে ভর্তি হওয়া। রেজাল্ট খারাপ হওয়ার কারনে এবং প্রতিযোগিতা অনেক বেশি হওয়ার কারনে অনেকেই ভাল মানের পলিটেকনিকে ভর্তি হতে পারি না। ভাল মানের পলিটেকনিকে ভর্তি হলে বিশেষ ধরনের কিছু সুবিধা পাওয়া যায় যা আমরা পূর্বে আলোচনা করেছি।

ভাল মানের পলিটেকনিক তালিকা দেখুন

ভাল মানের পলিটেকনিকে চান্স না পেয়ে যারা দূরবর্তী কোন পলিটেকনিকে চান্স পেয়েছেন তাদের জন্য ভাল পলিটেকনিকে পড়ার সুযোক রয়েছে। আর এটি হচ্ছে পলিটেকনিক ট্রান্সফার পদ্ধতি, এই পদ্ধতিতে ট্রান্সফার হতে হলে আপনাকে কিছু নিয়মের ভিতর দিয়ে যেতে হবে। অনেকেই প্রশ্ন করে থাকেন যে কিভাবে ট্রান্সফার হতে হয়, কখন হতে হয়, কি কি পেপার লাগে ইত্যাদি ইত্যাদি। অনেকেই না বুঝে মানুষের ধারে ধার ঘুর থাকেন, আজকের লেখাটিতে থেকে আশা করছি আপনারা সম্পূর্ণভাবে বুঝতে পারবেন। নিচে সরকারি পলিটেকনিকের ১ম এবং ৩য় পর্বের ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম দেয়া হয়েছে।

পলিটেকনিক ট্রান্সফার পদ্ধতিঃ

  • ট্রান্সফার পদ্ধতিতে শিক্ষার্থী এক পলিটেকনিক থেকে অন্য যেকোন পলিটেকনিকে যেতে পারবেন কিন্তু ডিপার্টমেন্ট পরিবর্তন করতে পারবেন না।
  • সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা দেয়ার পর থেকে সর্বোচ্চ ৭-১৫ দিনের মধ্যে ট্রান্সফার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে। তবে রেজাল্ট দেয়ার পর যত তারাতারি করা যায় ততই ভাল।
  • যে প্রতিষ্ঠান থেকে ট্রান্সফার হবেন সেখানে একটি দরখাস্ত লিখে জমা দিতে হবে এবং দরখাস্তে সি.আই স্যার আর অধ্যক্ষ স্যারের সাক্ষর লাগবে। দরখাস্তে যদি সি, আই স্যার এবং অধ্যক্ষ স্যার স্বাক্ষর দিয়ে দেন তাহলেই প্রায় ৭০% কাজ শেষ। নিজের ক্যাম্পাসে কাজ শেষ।
  • এখন যে পলিটেকনিকে ট্রান্সফার হতে চান সেই প্রতিষ্ঠানে যেতে হবে এবং সেখানে রেজিস্টার শাখায় দরখাস্তটাকে ২ কপি করে জমা দিতে হবে। এর সাথে লাস্ট সেমিস্টারের এডমিট কার্ড, রেজিস্ট্রেশন কার্ড, এস.এস.সির মার্কশিট এর কপি আর ২-৩ কপি পাসপোর্ট ছবি জমা দিতে হয়। এবার এখানেও কাজ শেষ।
  •  এবার কয়েকদিন অপেক্ষা করতে হবে এবং কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে একটি নোটিশ দেয়া হবে। ঐ নোটিশে দেখবেন আপনার নাম আছে কিনা। যদি সবকিছু ঠিকঠাক থাকে এবং ভাগ্য সহায় হয় তাহলে নাম এসে যাবে।
  • নাম আসা মাত্রই আপনি আপনার প্রতিষ্ঠান থেকে ছাড়পত্র এবং এস এস সির মূল মার্কশিট নিয়ে আসতে হবে এবং যে পলিটেকনিকে ট্রান্সফার হয়েছেন সেই পলিটেকনিকের রেজিস্টারে ভর্তি ফি এবং উক্ত মার্কশিট ও ছাড়পত্র জমা দিতে হবে। ভর্তি শেষ, এখন ডিপার্টমেন্ট থেকে ক্লাস রুটিন নিয়ে ক্লাস শুরু করলেই হবে।
পলিটেকনিক  ভর্তির আগে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ঃ
  • যে পলিটেকনিকে ট্রান্সফার হবেন সেই পলিটেকনিকে আপনার ডিপার্টমেন্টের সিট খালি আছে কিনা তা জেনে নেওয়া উচিত। তবে ৩য় সেমিস্টারে উঠতে অনেক ছাত্র ফেল করে ফলে অনেক সময় দেখা যায় সিট খালি থাকে।
  • ট্রান্সফারের  কাজ করার জন্য বোর্ড ফি ৩৫০ টাকা বা এর চেয়ে কম বেশি হতে পারে। এছাড়া ভর্তি হওয়ার জন্য ১০০০-১৫০০ টাকা লাগতে পারে।
  • রেজাল্ট মিনিমাম ৩.০০ থাকলে হয়ে যাবে। তবে ১ম, ২য়, ৩য় সেমিস্টারে এভারেজ ৩.০০ পয়েন্ট এর নিচে পেলে ট্রান্সফার না হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। তবে যত বেশি পয়েন্ট পাবেন তত বেশি চান্স থাকবে।
  • উপরোক্ত বিষয়গুলো বিবেচনা করে ট্রান্সফারের আবেদন করবেন। সাবধান, ভুলেও কোন প্রকার দালাল এর খপ্পরে পরবেন না।

আবেদনপত্রের ফর্মেট

MS word ফাইল ডাউনলোড করুনঃ application.doc

PDF ফাইল ডাউনলোড করুনঃ application.pdf

নিচে একটি Sample দেয়া হলো।

বরাবর,

      পরিচালক(কারিকুলাম)

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড,

আগারগাঁও, শের-ই-বাংলা নগর,

ঢাকা-১২০৭ ।

মাধ্যমঃ  অধ্যক্ষ, “বর্তমান পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট” এবং অধ্যক্ষ “ বদলী হতে ইচ্ছুক পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট”

বিষয়ঃ “__পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট” হতে “__পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটে” বদলীর জন্য আবেদন।

জনাব,

        সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, আমি আপনার __পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট এর প্রকৌশলী ডিপ্লোমা ইন ইঞ্জিনিয়ারিং এর চার বছর মেয়াদী কোর্সে ___ টেকনোলোজির _ বর্ষ , __ পর্বের __শিফট এর একজন নিয়মিত ছাত্র/ ছাত্রী ।__বর্ষের সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে সকল বিষয়ে উত্তীর্ণ হয়ে __ পর্বে অধ্যায়ণ করছি। অত্র প্রতিষ্ঠানের আশেপাশে বা অত্র এলাকায় আমার কোন অভিবাবক বা আত্নীয়-স্বজন না থাকার কারনে আর্থিক সমস্যা সহ আমার লেখাপড়ার মারাত্নক ব্যাঘাত ঘটছে। আমার অভিবাবকগণ __ থাকার ফলে প্রতি মাসে আমার লেখাপড়া সহ থাকা খাওয়ার খরচ বহন করা তাদের পক্ষে সম্বব হচ্ছে না । এমতাবস্থায় সুষ্ঠভাবে আমার পড়ালেখা চালিয়ে যাওয়া কষ্ট সাধ্য হয়ে পরেছে । সেজন্য আমি “__পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট”- এ ভর্তি হতে পারলে নিয়মিত ভাবে আমার লেখাপড়া চালিয়ে যেতে পারবো এবং আমার অভিবাবকেরো আর্থিক সাশ্রয় হবে।

        অতএব, আপনার নিকট বিনীত আবেদন আই যে, উপরোক্ত বিষয় বিবেচনা করে আমাকে “__পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট”-এ ভর্তির সুযোগ করে দিয়ে আমাকে মার্জিত করবেন ।

বিনীত নিবেদক

আপনার একান্ত বাধ্যগত ছাত্র/ছাত্রী

——–হাতে লিখতে হবে——–

(নাম টাইপ করে)

     বর্তমান পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট

টেকনোলোজি-

বর্ষ, পর্ব, শিফট

বোর্ড রোল-

রেজি নং-

সেশন-

ট্যাগসমূহঃ

পলিটেকনিক ট্রান্সফার ফরম, পলিটেকনিক ট্রান্সফার ২০১৯, পলিটেকনিক ট্রান্সফার ২০১৭, পলিটেকনিক বদলির নোটিশ, ডিপ্লোমা বদলির নোটিশ, পলিটেকনিক পরিবর্তন, ট্রান্সফার সার্টিফিকেট দরখাস্ত, ২০১৬ প্রবিধান পলিটেকনিক

2 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here